Bangla Tech Blog

  • Recent Post

    Bangaboandhu Satellite 2050 সালে কি পরিবর্তন হবে বাংলাদেশের ?

    satellite,satellites,bangabandhu satellite,nepal first satellite,satellite (literature subject),bangabandhu satellite benefits,satelite,satellite live,karas satellite,satellite nepal,satellite phone,satellite video,satellite lyrics,nepali satellite,what is satellite,3 birds satellite,satellite launch,speed of satellite,satellite in hindi,satellite in nepal,satellite of nepal,filatov satellite,sattellite view
    Bangaboandhu Satellite 2050 সালে কি পরিবর্তন হবে বাংলাদেশের ?

    Bangaboandhu Satellite 2050 সালে কি পরিবর্তন হবে বাংলাদেশের ?

     Bangabandhu Satellite নিয়ে এতো ভুল তথ্য যে, আসলে সত্য কোনটা সেটা নিজে জানলেও কনফিউজড হয়ে যাচ্ছি।অল্প বিদ্যার ভয়ংকারীর কবলে পড়লে যা হয় আরকি। তবে আজকের এই পোষ্টটি একটু ধৈর্য নিয়ে দেখুন। আজ এই পোষ্টের মাধ্যমে আমি আপনাকে Bangabandhu Satellite সম্পর্কে কিছু বাস্তব অভিজ্ঞতার সাথে পরিচয় করিয়ে দিবো।যা জানার পর আপনার মিশ্র প্রতিক্রিয়া হতে পারে।আবার আপনাদের মধ্যে অনেকেই আমাকে গাধা বা রাজাকার বলেও গালি দিতে পারেন। আজকের এই আর্টিকেলটি অনেক সময় ধরে লেখা হয়েছে।আর এই আর্টিকেলের তথ্যগুলো আমরা বিশেষভাবে যাচাই-বাচাই করে লিখেছি। বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটের এইসব তথ্যগুলো মোট ৫টি পয়েন্টের মাধ্যমে আপনাকে বোঝানোর চেষ্টা করবো।আর পোষ্টটি পড়ার পর আপনার ভেতরে থাকা Bangabandhu Satellite সম্পর্কে ভুল ধারনা গুলো আজ থেকেই পাল্টে যাবে। তো চলুন আজকের পোষ্টের বিষয় নিয়ে মূল আলোচনায় যাওয়া যাক।

    Bangabondhu Satellite Space in space


    ১. এ পর্যন্ত পৃথিবীর যেকোনো দেশ যখন তাদের স্যাটেলাইট উড়িয়েছে।তাদের মধ্যে প্রত্যেকেই তাদের  স্যাটেলাইটকে নিজের অক্ষরেখায় উড়িয়েছে। আমাদের বাংলাদেশ অবস্থান করছে ৮৬.৯১ ডিগ্রী পূর্ব দ্রাঘীমাংশে।সে হিসেবে বিবেচনা করলে বাংলাদেশ ৮৬.৯১ ডিগ্রীতে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটের স্লট পাওয়ার কথা। ৮৮.৯১ পজিশনে রাশিয়ার দুটি সহো আরও মোট চারটি স্যাটেলাইট রয়েছে।তাই এখানে আর স্থান  পাওয়া সম্ভব হয়নি।কিন্তু ৮৬.৮৮ ডিগ্রী সম্পূর্ন ফাকা থাকার পরও মহাকাশ সংস্থা আইটিইউ বাংলাদেশকে কোনো প্রকার স্লট দেয়নি।কেন দেয়নি কিংবা অথোরিটি কেন সেখানে স্লট পায়নি ,তার উওরটা আমরা আজ পর্যন্ত পাইনি।তার পরে বাংলাদেশ চেষ্টা করে ১০২ ডিগ্রিতে স্থান পাওয়ার।কিন্তু সেখানে রাশিয়া,অষ্ট্রেলিয়া এবং বাংলাদেশের বন্ধু ফ্রান্সসহো বেশ কয়েকটি দেশ Bangabandhu Satellite স্থাপনে আপওি জানায়। তারা তাদের কারন হিসেবে জানায়, বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট তাদের সম্প্রচারে বিঘ্ন ঘটাবে। তারপর সব বাধা পেরিয়ে বাংলাদেশ চেষ্টা করে ৭৯ ডিগ্রীতে,কিন্তু সেখানেও চীন,সিঙ্গাপুর,মালয়েশিয়াসহো বেশ কয়েকটি দেশ Bangabandhu Satellite স্থাপনে বাধা দেয়। আপনি জেনে অবাক হবেন যে, ৪০ টি দেশের মধ্যে বেশির ভাগ দেশই বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট স্থাপনে বাংলাদেশকে দিমুখী বাধা অর্থ্যাৎ দৌড়ানি দেয়। দ্বিমুখী দৌড়ানি খেয়ে বাংলাদেশ সর্বশেষ স্থান পায় ১১৯.১ ডিগ্রী পূর্ব দ্রাঘিমারেখায়। ্এখন প্রশ্ন হলো ৯০ ডিগ্রীতে থাকা বাংলাদেশকে ১১৯.১ ডিগ্রীতে থাকা স্যাটেলাইট কতটুকু কাভার করতে সক্ষম হবে? যেকোনো স্থানে স্যাটেলাইট স্থাপন করলেই যদি নিখুতভাবে কাভার করা সম্ভব হতো তাহলে অন্যান্য দেশগুলো তাদের নিজের অক্ষরেখাতে স্যাটেলাইট  উড়ায়? কিংবা যদি কোনো সমস্যা না হয় তাহলে শুধু বাংলাদেশের ক্ষেএেই এতো আপওি জানালো কেন? সর্বশেষ আইটিইউ কেন বাংলাদেশকে ৮৬.৮৮ ডিগ্রীতে স্লট দিলো না? এ প্রশ্নগুলোর উওর যাইহোক না কেন,এগুলো নিশ্চই বাংলাদেশেল পক্ষে যাবেনা।
    আর একটা গুরুত্বপূর্ন বিষয় হলো যে,বাংলাদেশের বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট Geostationary অর্থ্যাৎ ভুপৃষ্ঠ থেকে এটি নির্দিষ্ট উচ্চতায় উপরে স্থির থাকবে তার মেয়াদকাল পর্যন্ত। কিন্তু পৃথিবীকে প্রদক্ষিনকালে Orbital Move করবে না।


    The Number Of Satellite


    ২. বাংলাদেশের বিভিন্ন চ্যানেল বা বেসরকারি কোম্পানিগুলো কি বলা মাএই বঙ্গবন্ধু স্যাটেল্ইাট থেকে সেবা গ্রহন করবে? এই স্যাটেলাইট্রে সেবার মান বিদেশী স্যাটেলাইট থেকে যে উন্নত হবে তার নিশ্চয়তা কে দিবে? অতীতে টেলিটক সহো বিভিন্ন দেশীয় কোম্পানিগুলো “দেশের টাকা দেশে রাখুন”- বলে স্লোগান তুললেও কাজের কাজ কিন্তু কিছুই হয়নি। টেলিটক সহো দেশের সরকারি সেবার মান যে কতখানি জঘন্য সেটা আপনি,আমি,আমরা সবাই ভালোভাবেই জানি। এখন প্রশ্ন হলো,এতোকিছু জানার পরও আমাদের দেশের প্রতিষ্ঠানগুলো এ পথে পা বাড়াবে? উওরটা জানলে কমেন্ট বক্সে জানাবেন।


    ৩. বাংলাদেশের সরকার বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটের মাধ্যমে বিদেশে সেবা দিয়ে ৫০ মিলিয়ন ডলারের আয়ের স্বপ্ন দেখছে।কিন্তু প্রশ্ন হলো বাংলাদেশের সেবা কিনবে কারা? ভূটান,নেপাল,মায়ানমার,আরব কিংবা দক্ষিন পূর্ব এশিয়ার কোনো দেশ? বাংলাদেশ তো এখনও সম্পূর্নরুপে ভারতের উপর নির্ভরশীল।সেদিক থেকে বিবেচনা করলে নেপাল,ভূটান কিংবা অন্য কোনো দেশ ভারত বাদ দিয়ে আমাদের বাংলাদেশ থেকে সেবা নিবে।এটা সবচেয়ে বড় হাস্যকর বিষয়। সরকারের এই ডলার আয়ের স্বপ্নটাকে আরও হাস্যকর করতে এশিয়ার মোট স্যাটেলাইট্রে সংখ্যাটা একটু দেখে নেই চলুন।
    • ইন্দোনেশিয়া ““  ১৩টি
    • জাপান ““ ১৯৭ টি
    • মালয়েশিয়া ““ ৯টি
    • পাকিস্তান ““ ৩টি
    • ফিলিপাইন ““ ২টি
    • তাইওয়ান ““ ৯টি
    • আরব-আমিরাত ““ ৭টি
    • ভিয়েতনাম ““৫টি
    • সিঙ্গাপুর ““ ৪টি
    • থাইল্যান্ড ““ ৮টি
    • সৌদি আরব ““ ১৮টি
    • কাজকিস্তান ““ ৫টি
    • তুর্কি ““ ১০টি
    • ইরান ““ ৫টি
    • দক্ষিন কোরিয়া ““ ১৮টি
    • তুর্কমেনিস্তান ““ ১টি

    স্যাটেলাইটের হিসাব এখানেই শেষ নয়।Arab States Communication Organization  এর আছে ১৩ টি। Asia Satellite Telecom Company  এর আছে ৭টি। এছাড়াও Commonwealth এর আছে ১৪৯৬ টি। তাহলে বাকি কে থাকলো? বাকি থাকলো ইন্ডিয়া আর চীনের স্যাটেলাইটের সংখ্যা। স্যাটেলাইটের সংখ্যার দিক থেকে বিবেচনা করলে ইন্ডিয়ার আছে ৬৭ টি। আর চীনের স্যাটেলাইটের সংখ্যা ২৪৪ টি।এখন আপনিই বলুন,এদের এতো সব স্যাটেলাইট থাকার পরেও কে সদ্য আসমানে তোলা বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট থেকে সেবা নিবে? আর যদিও কোনো দেশ সেবা কিনতেও চায়।তাহলে ভারত আর চীন তাদের ব্যবসা তো আর নীরবে মেনে নিবে না। বাংলাদেশের সরকার আশা করছে,আমাদের পাশ্ববর্তী দেশ ভারতও আমাদের দেশের স্যাটেলাইট থেকে সেবা কিনবে।অথচ ভারতের নিজেদের রয়েছে ৬৭ টা স্যাটেলাইট ।এ হিসেবটা মনে হয় বাংলাদেশ জানে না।সহজভাবে বোঝাতে গেলে বলতে হবে যে,অন্যান্য দেশ আমাদের সেবা কিনবে। এ বিষয়টা শুধু গাছে কাঁঠাল,গোঁফে তেল দেয়া নয়।সদ্য নিজেই তেলে ডিব্বাতে ডুব দেয়ার মতো বিষয়। কারন একটা বিষয় সরকারের বোঝা উচিত ছিলো যে, স্যাটেলাইট্রে সেবা সেল করা। আর গার্মেন্টস থেকে বিদেশে প্রডাক্ট সেল করা কিন্তু একরকম বিষয় নয়। রাজনৈতিক কুটনীতির মতো এ বিষয়টা এক নয় যেমন, যতো গর্জে ততো বর্ষে না।আশা করি বিষয়টা বুঝতে পেরেছেন।


    Kind Of Satellite


    ৪.বিভিন্ন প্রকার স্যাটেলাইট বিভিন্ন রকমের কাজে ব্যাবহার করা হয়ে থাকে।একেকটা স্যাটেলাইট একেক কাজের জন্য ব্যবহার করা হয়ে থাকে। এজন্য মাএ কয়েকটা দেশ বাদে প্রায় সব দেশের একাধিক স্যাটেলাইট রয়েছে।তার প্রমান তো আপনারা অনেক আগেই পেয়েছেন। কিন্তু বাংলাদেশ দাবী করছে,বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট দিয়ে সব রকমের কাজ করা সম্ভব হবে। এটা কি করে সম্ভব? যদি উদাহরন হিসেবে আমরা ভারতকে আনি ,তাহলে তাদের ৬৭ টা স্যাটেলাইটের মধ্যে ৩৪ টা স্যাটেলাইট মূলত টেলিকমিউনিকেশনের জন্য ব্যবহার করা হয়। আর বাকিগুলো আবহাওয়া এবং কমিউনিকেশনের কাজে ব্যবহার করে। এখন প্রশ্ন হলো বাংলাদেশের এতো নিন্ম স্যাটেলাইট থেকে কিভাবে সব ধরনের সার্ভিস পাওয়া যাবে? উওরটা জানলে কমেন্ট্ করে জানাবেন।

    Bangabondhu Satellite Success


    ৫.সবচেয়ে ভয়ংকর ব্যাপার হচ্ছে আকাশে উৎক্ষেপন করা বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটের ৪২% নিজস্ব কক্ষপথে যেতেই ব্যর্থ হয়েছে।কক্ষপথে গিয়ে ঠিকঠাক কাজ করেছে মাএ ১৫% স্যাটেলাইট। আমাদের স্যাটেলাইটের এই ১৫% কি যথেস্ট সব রকমের সেবা পাওয়ার জন্য? সচিব সুনিল কান্তি বোষ তার নিজের বক্তব্যে বলেছেন যে, বাংলাদেশের ক্ষেএে এই ব্যর্থতা মেনে নেয়া হবে না। এখন প্রশ্ন হলো,না মেনে আপনি কি করবেন? মহাকাশে মাস্তানি চলে ? নাকি মাস্তানি করে টিকে থাকতে পারবেন? কিংবা এসব হুমকি-ধুমকি কাকে দিচ্ছেন?-THALES  ,SPACES  নাকি নিজের দেশের প্রতিষ্ঠানকে?



      আছেন এমন কোনো ব্যক্তি যারা এই ৫টি পয়েন্টের ঝাঁঝালো উওর দিতে পারবেন? যদি কেউ এই প্রশ্নগুলোর উওর জেনে থাকেন,তাহলে আপনাকে সাধুবাদ জানাই । আর আপনার জন্য তো কমেন্টবক্স আছেই।  আজ এ পর্যন্ত।আশা করি পোষ্টটি আপনাদের ভালো লেগেছে। যদি এই পোষ্টটি সামান্যতম ভালো লেগে থাকে তাহলে আপনাদের বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন।দেখা হবে পরবর্তী পোষ্টে। সে পর্যন্ত ভালো থাকুন। ধন্যবাদ।

    No comments

    Post Top Ad


    Post Bottom Ad