কম্পিউটারের গতি ও পারফরম্যান্স বৃদ্ধির একটি দারুন সফটওয়্যার


কম্পিউটারের গতি ও পারফরম্যান্স বৃদ্ধির একটি দারুন সফটওয়্যার

সকল কম্পিউটার ব্যবহারকরীই এই সাধারন বিষয়টি সম্পর্কে অবগত আছেন যে কম্পিউটার ব্যবহারের মেয়াদ যতই বাড়তে থাকে এর গতি ও কার্যক্ষমতাও তত কমতে থাকে। গাণিতিক ভাষায় বলা যায় কম্পিউটারের বয়স α ১/কার্যক্ষমতা অর্থাৎ কার্যক্ষমতা বয়সের ব্যস্তানুপাতিক। সোজা কথায় মেশিনও মানুষের মতই, বয়সের ভারে কম্পিউটারও নুয়ে পড়ে 
দীর্ঘদিন কম্পিউটার ব্যবহারের ফলে কম্পিউটারে প্রচুর অপ্রয়োজনীয় টেম্পোরারি ফাইল, রেজিস্ট্র ও অ্যাপ্লিকেশন তৈরি হয় যেগুলোর কিছু কিছু আবার ব্যাকগ্রাউন্ডে সচল থাকে যা মোমোরির প্রচুর অপচয় ঘটায়। মূলত এই কারণেই কম্পিউটারের গতি ধীরে ধীরে কমতে থাকে। তবে ডিফ্রাগমেন্ট, ক্লিনআপ, টেম্পোরারি ফাইল ও রেজিস্ট্রি ক্লিনাপ এর মত কিছু বিষয় সম্পর্কে সচেতন থাকলেই কিন্তু আপনার কম্পিউটার কখোনই বয়সের ভারে নুয়ে পড়বেনা 


এমনকি কিছু পদ্ধতি অনুসরণ করলে কম্পিউটার তার সাধারন ক্ষমতার থেকেও বেশি কাজ করতে সক্ষম হয়। আর এই সবকিছুই যদি করা যায় মাত্র একটি সফটওয়্যারের সাহায্যেই তাহলে তো আর কথাই নেই! 
 আর এমনি একটি সফটওয়্যার হল  TuneUp Utilities. একটা কম্পিউটারের পারফরম্যান্স নিয়ন্ত্রন করার প্রায় সব রকম টুলস ই রয়েছে মাত্র ২০ মেগাবাইটের এই সফটওয়্যারটিতে।

TuneUp Utilities
TuneUp Utilities

প্রথমে এখান থেকে TuneUp Utilities ডাউনলোড করে নিন। এবার ইন্সটল করে চালু করুন। আপডেট এর অপশন আসলে সেটাতে Never দিয়ে দিন। কারন Keygen দিয়ে Genuine করলে আপডেট এর সময় তা ধরা পড়ে এবং সফটওয়্যারটি Disable হয়ে যায়। এরপর Keygen থেকে Key নিয়ে Enter Key অপশন থেকে সফটওয়্যারটি Activate করুন।
এবার চালু করলেই দেখবেন সফটওয়্যারটি স্বয়ংক্রিয়ভাবে আপনার কম্পিউটারের সমস্যাগুলো চিহ্নিত করেছে। সেখান থেকে Fix দিয়ে সেগুলো ঠিক করে নিতে পারেন। এর Maintain System মেনুতে আছে ক্লিনআপ করার প্রায় সবরকম টুলস। এতে Startup ও Shutdown Optimizer ছাড়াও রয়েছে শক্তিশালী Hard Disk ও Registry ডিফ্র্যাগার যা কম্পিউটারের সাধারন ডিফ্র্যাগার থেকে কয়েক গুণ বেশি শক্তিশালী। এখানে আমি ইমতিয়াজ ভাইয়ের আগের এই পোস্টটির কথাই উল্লেখ করলাম, যদি ছোট কোন ফাইল ডিলিট করা হয় তবে সেখানে একটা ফাঁকা জায়গা তৈরি হয় এবং এই জায়গাটি যদি এতই ছোট হয় যে অন্য কোন ফাইল রাইট করা যায় না তবে হার্ডড্রাইভে এরকম ছোট ছোট অনেক ফাঁকা জায়গা তৈরি হয়, ডাটা রিড করার জন্য রিড হেডকে অনেক বেশি মুভ করতে হয়। ফলে হার্ডড্রাইভ স্লো হয়ে যায় এবং সার্বিক পারফরমেন্স খারাপ হয়ে যায়। শুধু ফাইলের ক্ষেত্রেই নয়, বিভিন্ন সফটওয়্যার ইন্সটল করে আবার আনিন্সটল করলে রেজিস্ট্রির ক্ষেত্রেও একই ঘটনা ঘটে আর এই ধরনের প্রায় সব সমস্যারই সমাধান পাওয়া যাবে এই সফটওয়্যারটিতে।
2010-08-30_125622
এরপর এর Increase Performance মেনুটিতে রয়েছে একটি শক্তিশালী ডিস্ক ক্লিনার ও টারবো মোড যা চালু করলে কম্পিউটার তার সাধারন ক্ষমতা থেকেও বেশি গতিতে কাজ করে ক্ষমতার সর্বোচ্চ ব্যবহার করতে পারবে। তাছাড়া Fix Problems মেনুটির কথা আগেই উল্লেখ করেছি। TuneUp Utilities এর আরেকটি বিশেষ গুণ হলো এটি আপনাকে বিভিন্ন সেটিংস, সফটওয়্যার ও হার্ডওয়্যার পরিবর্তন ও সংযোজনেরও পরামর্শ দেবে যা আপনার কম্পিউটারের কর্মদক্ষতা বাড়িয়ে দেবে কয়েকগুণ। এছাড়াও Customize Windows মেনুর সাহায্যে আপনি আপনার কম্পিউটারের Visual Appearance এও পরিবর্তন আনতে পারেন। এর মাঝে বিশেষ উল্লেখযোগ্য হল Log On স্ক্রিন, বিশেষ Icon ও Font ইত্যাদির স্টাইল পরিবর্তন করা।
আর এতকিছু একটা একটা করে করতে যদি আপনার আলসেমি বা বিরক্ত লাগে তাহলেও কোন সমস্যা নেই কারণ এতে রয়েছে TuneUp 1-Click Maintenance যা এক ক্লিকেই আপনার কম্পিউটারের সকল সমস্যা এবং অপ্রয়োজনীয় ফাইল ও রেজিস্ট্রি খুজে বের করে নিজেই তার সমাধান করবে।
2010-08-30_125732
এবার TuneUp Utilities চালু করে আপনি নাকে খাটি সরিষার তেল দিয়ে ঘুমাতে পারেন
 মোটকথা একটি কম্পিউটারকে সুস্থ্য রাখতে এবং এর সৌন্দর্য্য বৃদ্ধি করতে যা যা প্রয়োজন তার সবকিছুই আছে TuneUp Utilities এ 
**পোষ্ট টি ভালো লাগলে অবশ্যই  কমেন্ট করে জানাতে ভুলবেন না **
**আজকের মতো বিদায় নিচ্ছি ভালো থাকবেন **
,,,আল্লাহ্ হাফেজ,,,,,